ডিউটি ফাস্ট! অ’ন্তঃস’ত্ত্বা অবস্থাতেও লা’ঠি হাতে ট্রাফিক সামলাচ্ছেন ‘শিল্পা সাহু’, ভাইরাল সেই ভিডিও –

সাম্প্রতিক সময়ে সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে আম’রা এমন সব ঘ’টনার সম্মুখীন হই, যা একদিকে যেমন আ’নন্দ দেয়, আবার অন্যদিকে অবাকও করে। সম্প্রতি এমনই এক দৃশ্য উঠে এসেছে নেট দুনিয়ায়। যা দেখে হতবাক হয়ে গিয়েছেন সবাই।

আসলে এই ভিডিওটি শেখায় যে দায়িত্ব ও কর্তব্য মেনে চলা কাকে বলে। করো’নার দ্বিতীয় দ্বিতীয় ঢেউয়ে জর্জরিত হয়েছে গোটা দেশ। এই অবস্থায় সামনে এগিয়ে এসেছেন প্রথম শ্রেণির যোদ্ধারা।এবার সেরকমই একজন করো’না যোদ্ধাকে

দেখা গেল গ’র্ভাবস্থাতেই নিজের দায়িত্ব পালন করতে। যিনি ছত্রিশগড় পু’লিশ স্টেশনে ডিএসপি শিল্পা সাহু। ট্যুইটারে ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে দেখা গিয়েছে লা’ঠি হাতে ট্রাফিক সামলাচ্ছেন তিনি।শুধু তাই নয় পথচারীদের শেখাচ্ছেন এই ক’ঠোর

পরিস্থিতিতে আমা’দের কী করনীয় আর কী করনীয় নয়। ভিডিওটি প্রকাশ্যে আসতেই তার প্রশংসা করেছেন নেটিজেনরা। বলেছেন গ’র্ভাবস্থাতেই নিজের দায়িত্ব পালন করতে ভোলেননি তিনি।একইসাথে অনেকে এই ঘ’টনার সমালোচনাও

করেছেন। তাদের মতে এই রোদের মধ্যে বাইরে না বেরিয়ে তার বিশ্রাম নেওয়া উচিত ছিল। কারণ নিজের কথা না ভাবলেও আগত স’ন্তানের কথা তার মাথায় রাখা উচিত।এমনকি তাদের দাবী, যদি কেউ তাকে ডিউটি পালন করার জন্য জো’র করে

থাকেন তবে তাকে শা’স্তি দেওয়া উচিত। উল্লেখযোগ্য করো’নার প্রকো’পে রীতিমতো দিশেহারা হয়েছেন স্বাস্থ্যকর্মী ও প্রশাসনিক কর্মীরা। এই অবস্থায় সাধারণ মানুষের উচিত প্রয়োজনীয় সচেতনতা অবলম্বন করে সুরক্ষিত থাকা।

হাত নেই, মুখ দিয়ে পৃষ্ঠা উল্টিয়ে অবিরাম পড়ে চলেছেন পবিত্র কোরআন

আমা’দের সমাজে অনেককেই দেখা যায় সুস্থ থাকার পরেও মহান আল্লাহ তায়ালার ইবাদত করেন না। কিন্তু সম্প্রতি ইউটিউবে হাত না থাকা এক ধার্মীক মুসলীমের একটি ভিডিও প্রকাশের পর আলোরণ সৃষ্টি হয়েছে। ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে এক ৪০

থেকে ৪৫ বছরের এক মুসলামন তার দুটো হাত না থাকার পরেও তিনি কারো সাহায্য নেন না।মুখে ব্রাস করা থেকে শুরু করে ওযু, নামাজ এবং প্রতিদিন পবিত্র কোরআন পড়েন তিনি। হাত না থাকার কারণে আল কোরআনের পৃষ্ঠা মুখ দিয়ে

উল্টিয়ে নিনে ইবাদতে মুশগু’ল থাকেন এই মু’সলমান। তিনি একটি স’রকারি অফিসে চাকরী করেন। দিন শেষে বাসায় ফিরে ছেলে মে’য়েদের নিজেই পড়ান, অংক করে এমনকি ছবি এঁকে দিচ্ছেন। এসবই তিনি করে থাকেন তার পা দিয়ে।সৃষ্টির সেরা

জীব আশরাফুল মাকলুকাত হচ্ছে মানুষ। তবে মানুষ সৃষ্টির সেরা হলেও মহান আল্লাহ তায়ালা সব ধরণের মানুষদের পছন্দ করেন না। তাহলে মুসলামান ভাইদের অবশ্যই জেনে রাখা দরকার আল্লাহ আসলে কোন প্রকৃতির মানুষকে বেশি পছন্দ করেন।

মহান আল্লাহ তায়ালা আসলে ওই ধরণের মানুষকেই বেশি পছন্দ করেন যিনি আল্লাহ ও রসুলুল্লাহ (সা.)-এর নির্দেশ মেনে চলেন। কে ধ’নী, কে গরিব- সেটি তার কাছে গু’রুত্বহীন। বিশেষ করে যেসব গরিব মানুষ আল্লাহ ও রসুলুল্লাহ (সা.)-এর

নির্দেশ পালন করতে ক’ষ্টকে বরণ করে নেয়, তাদের গু’রুত্ব স্রষ্টার কাছে অনেক বেশি।তবে এ ক’ষ্টের অর্থ নিজেকে নিঃস্ব করে ফেলা নয়। আবু হুরায়রাহ (রা.) থেকে বর্ণিত : তিনি বলেন, হে আল্লাহর রাসুল! কোন প্রকারের দান-খয়রাত উত্তম?

রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, গরিবের ক’ষ্টের দান। যাদের ভরণ-পোষণের দায়িত্ব তোমার ও’পর তাদের থেকে দান-খয়রাত শুরু কর (আবু দাউদ থেকে মিশকাতে)।

About admin

Check Also

How To Win Friends And Influence People with stanozolol injection

Ultime Novità Fuelled risk sentimentand tamoxifen citrate solubility in water helped the dollar gain, especially …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *